Skip to main content

ছোট মেয়ের গল্পের বই

ছোট বেলায় লেখার অভ্যাস থাকলেও বড় বেলায় এসে অভ্যাসটা চলে গিয়েছিল। তারপর অনেকদিন ব্লগে লিখেছি। মাঝখানে বেশ কিছুদিন বিরতির পর আবারো লেখার ইচ্ছা জেগে উঠেছে। লেখা মানে সময়কে ওয়েবের পাতায় ধরে রাখা। আগে ডাইরির পাতায় মানুষ স্মৃতিকথা লিখে রাখতো। ডাইরি হয়তো এখনো কেউ কেউ লেখে। তবে ওয়েবেই স্বাচ্ছন্দ বেশী পাই।

অনেকের মতই আমিও চেয়েছিলাম আমার বাচ্চারা লিখতে শিখুক। সৃজনশীল লেখা না হোক, লেখার অভ্যাসটা গড়ে উঠুক। বড় মেয়েটা গ্রেড সেভেন এ যায়। জোর করে মাঝে মধ্যে ওকে দিয়ে লিখিয়েছি। লেখে ভালোই। এসব দেশে স্কুল থেকেই এরা লেখালেখির সাথে পরিচিত হয়। লেখা শেখানোর উপর এসব দেশে বাবা-মা রা বেশ গুরুত্ব দেয়। অনেকে অনলাইনে লেখালেখি শেখানোর ট্রেনিংও দেয়।

আমার ছোটবেলায় স্কুলে কোনদিন লেখা কেউ শিখিয়েছে বলে মনে করতে পারি না। দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার সাথে আমেরিকার শিক্ষা ব্যবস্থার তুলনা করে আমরা অনেকেই দেশেরটাকে ভালো মনে করে আত্মতৃপ্তির ঢেকুর তুলতে পছন্দ করি। আমি নিজেও একসময় সেরকম চিন্তা করতাম। কিন্তু বাস্তবতা বড়ই ভিন্ন। সে কথা পরে কখনো লেখা যাবে। সংক্ষেপে আমার উপলব্ধি হলো দেশে বাবা-মায়ের প্রচেষ্টায় যারা নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারে তারাই উঠে আসে। বাকীরা যারা উঠতে পারে না তারা আসলে সুযোগ পায়না। সেটা স্কুল থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত সব খানের জন্যই সত্যি। অপরদিকে এখানে বাচ্চাদের গড়ে তোলার চেষ্টা করা হয়, তাদের সুপ্ত প্রতিভার বিকাশের চেষ্টা করা হয়। সেটা মূলত স্কুলে সীমাবদ্ধ। ইউনিভার্সিটির আন্ডারগ্রাড পার হলে এরা ইন্ডিপেন্ডেট থিংকিং শিখে যায়। যারা সে পর্যন্ত পৌঁছুতে পারে না, তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারি ডিগ্রী না নিয়ে অন্য কিছু করে। এবং সেখানে তারা সফলও হয়।

বড়টার লেখার ইচ্ছে একেবারেই নেই। অনেক বলিয়ে কইয়েও ওকে দিয়ে লেখানো যায় না। অন্যদিকে ছোটটা, যে কিন্ডারগার্টেন-এ যায় সে মনে হচ্ছে লেখালেখিতে আগ্রহী হবে।

আজ সন্ধ্যায় আমার প্রিন্টারের ট্রে থেকে কাগজ চুরি করে বইয়ের মতো ভাঁজ করে বসে বসে দেখি টেপ মারছে। উদ্দেশ্য বইয়ের মতো শেইপ দেয়া যেটা বাঁধাই করা বইয়ের মতো দেখায়। দেখলাম ভালোই বই বানিয়েছে।

বই বানিয়েই শেষ করে নি। সেটা কিসের বই তাও দেখিয়েছে। ইংরেজী বাক্য গঠন এখনো তার শেখা হয়ে ওঠেনি। তবে তার সাহায্য নিয়ে আমি ইংরেজি থেকে ইংরেজিতে অনুবাদ করে দিলাম।

_MG_2740.jpg
ইলিয়ার হাতে বানানো গল্পের বই – জানুয়ারি ৭, ২০১৬
_MG_2734.jpg
A book about flowers – by Eiliyah Jan 7, 2016
_MG_2735.jpg
Once there was a kid named Eiliyah. She was planting in the garden — Jan 7, 2016
_MG_2736.jpg
and one flower started to grow. That flower was a sunflower!

A book about flowers

-by Eiliyah

Once there was a kid named Eiliyah
She was planting in the garden
One flower started to grow
That flower was a sunflower

(Jan 7, 2016)

ধারণা করি বাংলাদেশের এই বয়সী বাচ্চারা আরো অনেক অগ্রগামি। সেটা নিয়ে আমি চিন্তিত নই। বরং নিজে থেকেই যে আগ্রহ প্রকাশ করে একটা গল্প লিখে নিয়ে এসেছে, আমি সেজন্যই খুশি। তাকে জিজ্ঞেস করলাম বানান গুলো এভাবে নয়, অন্যভাবে হবে। তখন সে বলে– না এটা তো এভাবেই প্রনাউন্স করে। আমি আরো মুগ্ধ হলাম এটা ভেবে যে সে নিজের মতো করে চিন্তা করা শিখেছে।

আগ্রহ ধরে রাখা গেলে আসল বানান পরে শেখানো যাবে।

সবাইকে ধন্যবাদ।

Enayet

I am Enayet Raheem. I'm a full time statistician and part time thinker and I love the beauty of nature. Photography is my part time hobby. I work as a Data Scientist at a healthcare organization in the US.

Leave a Reply